লিখলেন ‘সমুখে শান্তি-পারাবার’।…

সম্পাদকীয়

“ডাকঘরের জন্য উনি একটি গান লিখলেন ‘সমুখে শান্তি-পারাবার’।… আমায় শিখিয়ে দিয়ে বললেন এই গানটি প্রত্যক্ষ দেখতে পেলাম। তাই লিখে রেখে তোমায় শিখিয়ে গেলাম। অন্যান্য গানের মতো এ গানটি কাউকে শিখিও না। আমার যখন ‘হয়ে যাবে’ তখন এই গানটি করিও। কিন্তু তখন তুমি আমাকে কাছে পাবে না। গানটি সুটকেসের তলায় আলাদা করে লুকিয়ে রেখেছিলাম।
….কোলকাতা থেকে টেলিগ্রাম এলো সেই চরম সংবাদ নিয়ে। “হি ইজ সিংকিং”।
আমি পাগলের মতো ছুটছি স্টেশনের দিকে। পথে ক্ষিতিমোহনবাবুর সঙ্গে দেখা হলো। বললেন কোথায় চলেছো? গানটার কি ব্যবস্থা করলে? যাচ্ছোই বা কেন? জনতার ঢেউয়ে নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। তাঁর কাছে কি পৌঁছাতে পারবে?
সত্যিই তো গানটার দায়িত্ব তো আমারই ওপর। আমি রয়ে গেলাম। কণিকা, ইন্দুলেখা, অমলা সরকার– ওদের শেখালাম। ওদিকে কোলকাতায় গুরুদেব অগণিত জনতাবেষ্টিত হয়ে নিমতলা মহাশ্মশানের দিকে অনন্তের পথে যাত্রা করেছেন –শান্তিনিকেতনের মন্দিরে আমরা কজন মিলে তখন গাইছি ‘সমুখে শান্তি- পারাবার’– মেয়েগুলো তো কেঁদে সারা। গাইবে কি?”
—-শৈলজারঞ্জন মজুমদার।
কণক বিশ্বাস এই গানটি রেকর্ড করেন অনাদিকুমার দস্তিদারের পরিচালনায়, শৈলজারঞ্জনের এস্রাজ সঙ্গতে।

Share this:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *